আন্তর্জাতিক

সৌদি আরবও ইসরায়েলের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্ক স্থাপন করবে : পম্পেও

সৌদি আরবও ইসরায়েলের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্ক স্থাপন করবে বলে আশা করছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। তিনি বলেন, আমাদের প্রত্যাশা সৌদি আরব ইসরায়েলের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্ক স্থাপনের বিষয়টি বিবেচনা করবে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী পম্পেও ইসরায়েল, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইনের মধ্যকার সম্পর্ক স্বাভাবিকতার জন্য আগস্টে স্বাক্ষরিত বিতর্কিত আব্রাহাম চুক্তির অংশ হিসেবে ওই অঞ্চলটিতে কূটনীতিতে অংশ নেয়ার জন্য সৌদি আরবকে আহ্বান জানান।

বুধবার সৌদির পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান আল সৌদের সঙ্গে এক আলোচনায় তিনি এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

আমি আশা করি সৌদি আরব ফিলিস্তিনি পক্ষকে ইসরায়েলের সঙ্গে ফের সংলাপ ও আলোচনার জন্য উৎসাহ দেবে, বলেন পম্পেও।

আলোচনায় পম্পেও মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের দীর্ঘকালীন অবস্থানের বিষয়টি পুনর্ব্যক্ত করেছেন। তেহরান এই অঞ্চলে খারাপ একটি শক্তি হিসেবেও আখ্যায়িত করেছেন।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় তেল উৎপাদনকারী সৌদির আরামকো কোম্পানিতে ড্রোন দিয়ে হামলার বিষয়ে ইরানকে দায়ী করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র।

এক সময় আরব মিডিয়ায় ইসরায়েলকে আখ্যায়িত করা হতো ইহুদিবাদী শক্তি হিসেবে। সেই দিন বদলেছে। মধ্যপ্রাচ্যে সৌদি প্রভাব বলয়ের দেশগুলো ধীরে ধীরে ফিলিস্তিনকে ছুড়ে ফেলে ইসরায়েলের ঘনিষ্ঠ হচ্ছে।

রিয়াদের মিত্র সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইন এরইমধ্যে ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করেছে। আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পর আরও কয়েকটি আরব দেশ ইসরায়েলকে স্বীকৃতি দেবে বলে গুঞ্জন রয়েছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছেন, সাত থেকে ৯টি দেশ ইসরায়েলের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্ক স্থাপন করবে। এরমধ্যে সৌদি আরবও রয়েছে। যথাযথ সময়ে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত আসবে।

আরও খবর পেতে দেখুনঃ আন্তর্জাতিক নিউজ সম্মান ও স্বীকৃতি

Positive Political News, Positive Political News

এই জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

13 − 13 =

Back to top button