latest News
Home / দেশবাংলা / আম্পানের ঝড়ে শতাধিক অসহায় পাখি রান্না করে খেল গ্রামবাসী

আম্পানের ঝড়ে শতাধিক অসহায় পাখি রান্না করে খেল গ্রামবাসী

নাটোরের বড়াইগ্রামে বাজারের পাশের তিনটি শিমুল গাছে বসবাস করতো দুই শতাধিক শামুকখোল পাখি।

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের ঝড়ো হাওয়ার প্রভাবে তাল সামলাতে না পেরে অসহায় হয়ে মাটিতে একে একে পড়ে যায় শতাধিক শামুকখোল পাখি, তা ধরে নিয়ে ভুরিভোজ করেছে স্থানীয়রা।

গ্রামের পাখিপ্রেমী তরুণ আব্দুল কাদের বলেন, তিন মাস ধরে গ্রামের বটতলা বাজারের পাশের তিনটি শিমুল গাছে আস্তানা গড়ে দুই শতাধিক শামুকখোল পাখি। দিনের বেলায় পাখিগুলো আশপাশের বিলে খাবার খেতে যেত। রাতে গাছে এসে আশ্রয় নিত। এর মাঝে অনেকেই পাখিগুলো শিকার করার চেষ্টা করেছেন। তবে তিনি বাধা দেওয়ায় তাদের চেষ্টা সফল হয়নি। কিন্তু শেষ রক্ষা হলো না।

আজ ভোরে ঝড়ের তাণ্ডবে পাখিগুলো এক এক করে মাটিতে পড়ে যায়। এ সময় সুযোগসন্ধানী লোকজন পাখিগুলো ধরে বাড়িতে নিয়ে যান। মাংস হিসেবে রান্নার জন্য কেটেকুটে পরিষ্কার করা হয়। খবর পেয়ে আব্দুল কাদের ছুটে যান বাড়ি বাড়ি। কিন্তু ততক্ষণে দেরি হয়ে যায়। অনেকেই রান্নার জন্য এসব পাখির মাংস চুলাতে চড়িয়েছেন। পাখিরগুলোর আস্তানার কাছে ছুটে গিয়ে তিনি একটি পাখিও দেখতে পাননি।

আব্দুল কাদের বলেন, কয়দিন আগেই তিনি এসব অতিথি পাখির ছবি তুলে স্থানীয় প্রশাসন ও গণমাধ্যম কর্মীদের দেখিয়েছিলেন। গর্ব করেছিলেন পাখিগুলোর নিরিবিল অবস্থান নিয়ে। কিন্তু ঘূর্ণিঝড় আম্পান সব শেষ করে দিলো। মনে কষ্ট নিয়ে তিনি বলেন, ‘অনেক বুঝিয়ে গ্রামবাসীকে এতদিন পাখিগুলোকে ধরতে দেইনি। অথচ ঝড়ের কারণে এক রাতেই পাখিগুলো শেষ হয়ে গেল। এ কষ্ট আমি কখনোই ভুলতে পারব না।’

যে শিমুল গাছে এতদিন পাখিগুলো আশ্রয় নিয়েছিল, তার পাশেই আশরাফ আলীর বাড়ি। তিনি বলেন, এক একটা পাখির ওজন ছিল ২ থেকে ৩ কেজি করে। পাখিগুলোর প্রতি গ্রামের কিছু লোকের আগে থেকেই লোভ ছিল। ঝড়ের সময় মানুষ যখন নিজেদের জানমাল নিয়ে ব্যস্ত, তখন ওইসব লোকজন পাখিগুলো ধরে নিয়ে যায়। ঘটনা জানাজানি হওয়ার আগেই পাখিগুলো কেটেকুটে রান্নার উপযোগী করা হয়।

চলনবিল জীব বৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সভাপতি সাইফুল ইসলাম বলেন, অসহায় অতিথি পাখি নিধনের ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। এ ধরনের পরিস্থিতি এড়ানোর জন্য স্থানীয় প্রশাসনকে আগে থেকে তৎপর থাকা দরকার ছিল। পাখির আবাসস্থলের আশপাশের লোকজনকে সচেতন করে পাখি নিধন বন্ধে উদ্যোগ নেওয়া উচিত।

বাজিতপুর গ্রামের কলেজ শিক্ষক মহসিন আলী বলেন, তিন-চার মাস ধরে গ্রামের বটতলা মোড়ের পাশের তিনটি শিমুল গাছে আস্তানা গড়ে শতাধিক শামুকখোল পাখি। দিনের বেলায় পাখিগুলো আশপাশের বিলে খাবার খেয়ে রাতে এ সব গাছে এসে আশ্রয় নিত। এর মাঝে অনেকেই পাখিগুলো শিকার করার চেষ্টা করেছেন। তবে গ্রামের তরুণদের বাধার কারণে তাদের চেষ্টা সফল হয়নি। কিন্তু ঝড়ের সুযোগে কিছু লোভী মানুষের কারণে শেষ রক্ষা হলো না।

তিনি আরও জানান, বুধবার রাত থেকে ঝড়ের তাণ্ডবে পাখিগুলো এক এক করে মাটিতে পড়ে যায়। এ সময় সুযোগসন্ধানী লোকজন পাখিগুলো ধরে বাড়িতে নিয়ে যান। মাংস হিসেবে রান্নার জন্য কেটে কুটে পরিষ্কার করা হয়। খবর পেয়ে স্থানীয় পাখিপ্রেমীরা ছুটে যান বাড়ি বাড়ি। কিন্তু ততক্ষণে দেরি হয়ে যায়। অনেকেই রান্নার জন্য এ সব পাখির মাংস চুলাতে চড়িয়েছেন। পরে পাখিগুলোর আশ্রয় নেয়া গাছগুলোর কাছে গিয়ে আর কোনো পাখি দেখা যায়নি।

বড়াইগ্রাম উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা উজ্জল কুমার কুণ্ডু বলেন, বাজিতপুরে গ্রামে অতিথি পাখি শামুকখোল পাখি থাকার বিষয়টি তাঁদের জানা ছিল না। এ রকম ঘটনা যেন আর না ঘটে সে জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Micro Web Technology

Check Also

বিগত দু’দিনে বিষাক্ত মদপানে দুই জেলায় ১২ জনের মৃত্যু!

দেশের দুই জেলায় বিষাক্ত মদ খেয়ে দুই দিনে ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের মধ্যে এক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

12 − one =

বাংলাদেশে

  • মোট আক্রান্ত: ৪৪৬০৮ জন,
  • মোট সুস্থ: ৯৩৭৫ জন,
  • মোট মৃত্যু: ৬১০ জন

বিশ্বে

  • মোট আক্রান্ত: ৫৯২৩৪৩২ জন,
  • মোট মৃত্যু: ৩৬৪৮৪৯ জন