latest News
Home / করোনাভাইরাস / করোনা চিকিৎসায় প্রস্তুত বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির ভেন্টিলেটর

করোনা চিকিৎসায় প্রস্তুত বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির ভেন্টিলেটর

বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির ইনোভেশন ল্যাব ও তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের উদ্যোগে সহজে বহনযোগ্য ভেন্টিলেটর মেশিনের প্রটোটাইপ তৈরি করা হয়েছে। স্বল্পমূল্যে প্রস্তুত এই ভেন্টিলেটর শ্বাসকষ্টজনিত অসুস্থ রোগীর চিকিৎসায় অসামান্য ভূমিকা রাখতে সক্ষম।

রোববার রাতে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি ডেপুটি রেজিস্ট্রার (জনসংযোগ) কর্মকর্তা সোহেল আহসান নিপু স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ভেন্টিলেটর মেশিনটি নির্মাণে নির্বাহী তত্ত্বাবধায়কের দায়িত্বে ছিলেন বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির  ইনোভেশন ল্যাবের প্রধান প্রকৌশলী কাজী তাইফ সাদাত।

প্রকৌশলী কাজী তাইফ সাদাত জানান, এ ভেন্টিলেটর মেশিনটিতে মেকানিক্যাল পাম্পের বদলে ইলেক্ট্রনিক পাম্প ব্যবহার করা হয়েছে। যার ফলে মেশিনটির রক্ষণাবেক্ষণ অনেক সহজ ও যান্ত্রিক ঘর্ষণজনিত ক্ষয় কম। মেশিনটি দ্বারা সুষম বায়ু প্রবাহের জন্য দুটি ডায়াফ্রাম পাম্প ব্যবহার করা হয়েছে যা থাইরিষ্টর দ্বারা নিয়ন্ত্রিত।

সম্পূর্ণ কার্যপ্রণালীটি মাইক্রো কন্ট্রোলারের দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। এ মেশিনটিতে রোগীর প্রয়োজন অনুযায়ী পাম্পের গতি, শ্বাস গ্রহণ ও শ্বাস ত্যাগের সময় নিয়ন্ত্রণ করা যায়। মেশিনটি শিশু ও বয়স্ক উভয় রোগীর ক্ষেত্রে ব্যবহার উপযোগী।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, ভবিষ্যতে মেশিনটির সঙ্গে হার্টরেট পর্যবেক্ষণ যন্ত্র সংযোজন করা হবে যাতে রোগীর শ্বাসপ্রশ্বাসের প্রকৃতি নির্ণয় করা যায়। এছাড়া বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের মতামতের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় পরিমার্জন করে দেশীয় প্রযুক্তির এই স্বল্প মূল্যের যন্ত্রটি কোভিড ১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত মুমূর্ষু রোগীর চিকিৎসা কাজে বাবহার করা সম্ভব।

এ লক্ষ্যে বাংলাদেশ  ইউনিভার্সিটির ইনোভেশন ল্যাব ও তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগ এরইমধ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সূত্র ডেইলি বাংলাদেশ

Micro Web Technology

Check Also

ব্রাজিলকে ২০ লাখ ডোজ ‘অপ্রমাণিত করোনার ওষুধ’ দিল যুক্তরাষ্ট্র

মহামারি করোনাভাইরাসের নতুন হটস্পটে পরিণত হয়েছে লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল। দেশটিতে হু হু করে বাড়ছে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five + 11 =

বাংলাদেশে

  • মোট আক্রান্ত: ৪৭১৫৩ জন,
  • মোট সুস্থ: ৯৭৮১ জন,
  • মোট মৃত্যু: ৬৫০ জন

বিশ্বে

  • মোট আক্রান্ত: ৬০৫৭৫৫৩ জন,
  • মোট মৃত্যু: ৩৬৯১০৬ জন