Lead Newsআন্তর্জাতিক

শান্তি আলোচনায় সরকার-তালেবান

আফগান সরকার ও তালেবানের মধ্যে শুরু হয়েছে শান্তি আলোচনা। দেশটিতে শান্তি ফেরাতে শনিবার কাতারের রাজধানী দোহায় শুরু হয়েছে দুই দিনের বৈঠক। একদিকে চলছে দুপক্ষের মধ্যকার রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ-যুদ্ধ। তার বন্ধ না করেই কাতারে প্রতিনিধি পাঠিয়েছে দুই পক্ষ। শান্তি আলোচনায় আফগান সরকারের পক্ষে নেতৃত্ব দিচ্ছেন সাবেক প্রধান নির্বাহী আবদুল্লাহ আবদুল্লাহ। আলোচনা শুরুর একদিন আগে শুক্রবার তিনি দোহায় পৌঁছান। আলোচনায় যোগ দিয়েছেন আফগানিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাই। এছাড়া তালেবান প্রতিনিধিদলের পক্ষ থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছে তাদের রাজনৈতিক উপপ্রধান মোল্লা বারাদার।

বৈঠক শুরুর আগেই আফগান সরকারের প্রতিনিধিদলের প্রধান আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ বলেছেন, দেশে সংঘর্ষ চলার মধ্যেই এই বৈঠক হচ্ছে। ফলে যত দ্রুত সম্ভব যুদ্ধ বন্ধের চেষ্টাই থাকবে প্রধান আলোচ্য বিষয়। এছাড়া বৈঠকে সরকারি বাহিনী ও তালেবানের মধ্যে যুদ্ধবিরতি, অন্তর্বর্তী সরকার গঠন ও তালেবান বন্দীদের মুক্তির বিষয়ে আলোচনা হওয়ার কথা রয়েছে।

সম্প্রতি আফগানিস্তানজুড়ে নতুন করে সরকারি বাহিনীর সঙ্গে সংঘাতে জড়িয়েছে তালেবান। আফগানিস্তানের ২৯টি প্রদেশের ১১৬টি জেলা নিজেদের দখলে নিয়েছে তারা। তালেবানের দখলে থাকা জেলাগুলোতে এক কোটি ৩০ লাখ মানুষের বসবাস রয়েছে। যারা বঞ্চিত হচ্ছেন নানাবিধ নাগরিক সুবিধা থেকে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন নারীরা। ১৫ জুলাই কাবুলে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন আফগান সরকারের প্রশাসনিক সংস্কার বিষয়ক কমিশনের চেয়ারম্যান আহমাদ নাদের নাদেরি।
এসময় নাদেরি আরও জানান, ১১৬টি জেলা দখল করার সময় তালেবান ধ্বংস করেছে নানা সরকারি স্থাপনা। বাজার মূল্য হিসেবে যার পরিমাণ দাঁড়ায় ৫০ কোটি ডলার।

২০০১ সালে মার্কিন-নেতৃত্বাধীন বাহিনীর হাতে ক্ষমতাচ্যুত হয় তালেবান। এরপর দেশটিতে গণতান্ত্রিক প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হয় এবং একটি নতুন সংবিধান গৃহীত হয়। কিন্তু তালেবান এরপর এক দীর্ঘ বিদ্রোহী তৎপরতা শুরু করে। ক্রমান্বয়ে তারা আবার শক্তি সঞ্চয় করে এবং যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো বাহিনীকে আরও বেশি করে সংঘাতে জড়িয়ে ফেলে। কিন্তু এখন মার্কিন বাহিনী আফগানিস্তান থেকে তাদের সবশেষ সৈন্যদের প্রত্যাহার করে নিচ্ছে।

মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পর থেকে আফগান সরকার ও তালেবানের মধ্যে সংঘর্ষ তীব্র আকার ধারন করে। তালেবান জানিয়েছে, তারা ইতোমধ্যে আফগানিস্তানের ৮৫ ভাগের বেশি এলাকা দখল করেছে। যদিও এ পরিসংখ্যান নিয়ে বিতর্ক আছে। আফগান সেনারা দেশটিতে তালেবানদের অগ্রগতি থামাতে হিমশিম খাচ্ছে।

সূত্র: আল জাজিরা

এই জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seventeen + 17 =

Back to top button