Lead Newsরাজনীতি

খালেদা জিয়াসহ বিএনপি মুক্ত দেশ চায় প্রধানমন্ত্রীঃ রিজভী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খালেদা জিয়া ও বিএনপি মুক্ত বাংলাদেশ চায় বলে মন্তব্য করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, ‘আপনাদের উদ্দেশ্য খারাপ। আপনারা খালেদা জিয়ার জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছেন। আপনি (প্রধানমন্ত্রী) চান খালেদা জিয়া মুক্ত বিএনপি মুক্ত বাংলাদেশ। সে কারণে যে করেই হোক খালেদা জিয়াকে পৃথিবী থেকে সরিয়ে দিতে হবে। খালেদা জিয়ার সুস্থ হওয়াকে আপনি বিপদ মনে করছেন। এই বিপদ দেখেই নানা টালবাহানা করছেন। কোন টালবাহানা চলবে না। আপনি কিছুই করতে পারবেন না।’

বুধবার (১ ডিসেম্বর)জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের উদ্যোগে নয়াপল্টনে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তাকে বিদেশে উন্নত চিকিৎসার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিলে তিনি এসব কথা বলেন।

অসুস্থ বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কিছু হলে সারা দেশে আন্দোলনের আগুন জ্বলবে মহিলা দলের নেত্রীদের এমন বক্তব্যের উদ্বৃতি টেনে রুহুল কবির রিজভী বলেন, এই আগুন মিট মিট করে জ্বলবে না, এই আগুন ধিকিধিকি করে জ্বলবে না। এই আগুন ধাও ধাও করে জ্বলবে এবং অত্যাচারীদের সকল শৃঙ্খল ছাড়খাড় করে পুড়িয়ে দিবে।

কুড়িগ্রামের ডিসি সুলতানা পারভীনকে রাষ্ট্রপতি ক্ষমা করায় তার (রাষ্ট্রপতির) কড়া সমালোচনা করে বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, ‘আজকে অন্যায় করেন আপনারা আবার আইনের কথা বলেন। কুড়িগ্রামের ডিসি সুলতানা পারভীন রাতের অন্ধকারে আনছার দিয়ে বাড়ি থেকে তুলে এনে সাংবাদিক আরিফুল ইসলামকে বীভৎস নির্যাতন করলেন। অথচ সেই ডিসি সুলতানা পারভীনের সকল অপরাধ ক্ষমা করে দেয়া হলো। কে ক্ষমা করলো?এই রাষ্ট্রপতি। এই রাষ্ট্রপতি ডাকাতদের ক্ষমা করেন। এই রাষ্ট্রপতি হত্যাকারীদেরকে ক্ষমা করেন,ঘাতকদের ক্ষমা করেন। শীর্ষ সন্ত্রাসীদেরও ক্ষমা করেন।

আইনে না থাকায় খালেদা জিয়াকে বিদেশে চিকিৎসা করানোর কোন সুযোগ নেই আইনমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, ‘আপনি কোথা থেকে আইন পেয়েছেন। আপনি মিথ্যা কথা বলছেন। তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে নির্যাতন করার জন্যই আইনমন্ত্রী এই কথা বলছেন।’

তিনি বলেন, সোয়াশো বছর আগের প্রিজন অ্যাক্টের বিধান অনুযায়ী সরকার একজনকে চিকিৎসার জন্য পাঠাতে পারে। সাজা মওকুফ করতে পারে। সবকিছু করতে পারে। আর যার মৃত্যুর ঝুঁকি আছে তার সবকিছু মাফ করে চিকিৎসার বন্দোবস্ত করতে পারে। কিন্তু তাজ্জব ব্যাপার, আইনমন্ত্রী বলছেন তাকে বিদেশ যেতে হলে আবার কারাগারে গিয়ে আবেদন করতে হবে। মিথ্যাবাদী এই আইনমন্ত্রী। প্রচলিত যে আইন আছে সেই আইনেই দেশনেত্রী খালেদা জিয়া চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে পারেন।

এসময় আইনমন্ত্রীকে প্রশ্ন করে রিজভী বলেন, আপনাদের নেতা মো. নাসিম যে কারাগারে থাকা অবস্থায় বিদেশে চিকিৎসার জন্য গেছেন সেটা কোন আইনে গেছেন?

বিএনপির এই সিনিয়র নেতা বলেন, ‘গতকাল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন বিএনপি নাকি চোরাগলি দিয়ে ক্ষমতায় যাওয়ার চেষ্টা করছেন। কোথায় আমরা চেষ্টা করলাম? আমরা তো রাজপথে দাঁড়িয়ে আছি রাজপথেই চেষ্টা করছি। আমাদের উপর জুলুম নির্যাতন নেমে আসছে তারপরেও আমরা রাজপথে আছি। আজকে জাতীয়বাদী মহিলা দলের একটা মৌন মিছিল যেখানে কোন আওয়াজ হবে না সেই কর্মসূচিও পুলিশ বাধা দিচ্ছে।

তিনি বলেন, আপনারা কি এমন করছেন যে আপনাদের এত ভয়? মহিলা দলের একটা প্রোগ্রাম ঠিকমত করতে দেন না। কেন এত ভয়? ভয় থাকে চোরদের, যারা চোরা পথে ক্ষমতায় গিয়ে থাকে তাদের ভয় থাকে। বেগম খালেদা কিন্তু কোন দিন চোরাগলির ভোট করেননি। তিনি কখনও নিশিরাতের প্রধানমন্ত্রী হননি। তার বিরুদ্ধে প্রত্যেকটি ভোটে আওয়ামী লীগ অংশগ্রহণ করেছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। দিনের ভোট যারা রাত্রে করে তারা কি ভদ্র লোক?চোর তো রাতেই চুরি করে।

বিক্ষোভ সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন- দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান, আফরোজা আব্বাস, সুলতানা আহমেদ, নিলুফার চৌধুরী মনি, হেলেন জেরিন খান প্রমুখ।

এই জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

14 + ten =

Back to top button